প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করুন
কিছু লিখুন
প্রেরণ করুন
রেজিস্ট্রেশন

FAQ

প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

আসলে, নিউট্রনের অতিরিক্ত সরবরাহের প্রয়োজন নেই: পারমাণবিক জ্বালানী নিজেই সবকিছু করবে। ইউরেনিয়ামের স্বতঃস্ফূর্ত বিভাজনের মতো একটি ঘটনা রয়েছে, যার ফলস্বরূপ ইউরেনিয়াম নিউক্লিয়াস নিজেই দুটি অংশে বিভক্ত হয় – কোনো বাহ্যিক প্রভাব ছাড়াই। এই ক্ষেত্রে নিউট্রনও নির্গত হয়। সুতরাং যেকোন ইউরেনিয়াম, পাশাপাশি পারমাণবিক জ্বালানী নিউট্রনের উৎস। যতক্ষণ নিউট্রন শোষণকারী কন্ট্রোল রড কোরে নিমজ্জিত করা হয় ততক্ষণ চুল্লিটি কাজ করতে পারে না। তবে কিছু রড অপসারণ করা হলে স্বতঃস্ফূর্ত ফিশন নিউট্রনের জন্য এটি কাজ করা শুরু করবে। এটি সত্য যে কখনও কখনও কমপ্যাক্ট স্টার্ট-আপ নিউট্রন চুল্লিকে চালু করতে ব্যবহৃত হয়, তবে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের ক্ষেত্রে তা প্রয়োজন হবে না। পারমাণবিক জ্বালানী লোড করে এবং কিছু কন্ট্রোল রড অপসারণ করলেই বিক্রিয়া শুরু হবে।

আধুনিক পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলিতে নির্ভরযোগ্য বহুস্তর বিশিষ্ট সুরক্ষা ব্যবস্থা রয়েছে। প্রথম ব্যবস্থা হলো ফুয়েল পেলেট, যার ভেতরে থাকবে ইউরেনিয়াম। পেলেটগুলো ধাতুর তৈরি রডের ভেতরে বসানো থাকে। পরবর্তী ব্যবস্থা হলো রিয়েক্টর ভেসেল। এবং সর্বশেষ ব্যবস্থা হলো কংক্রিটের তৈরি কন্টেইনমেন্ট ভেসেল, যা বাহিরে থাকে। কন্টেইনমেন্টটি সমস্ত প্রকার বাহ্যিক প্রভাবকে (ভূমিকম্প, টর্নেডো, হারিকেন, ধূলিঝড়, বায়ু শক এবং এমনকি পতনশীল বিমান) সহ্য করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে।

এছাড়াও নিয়ন্ত্রণ এবং সুরক্ষা ব্যবস্থাও রয়েছে, যা পারমাণবিক বিক্রিয়াকে সম্পূর্ণ বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। উপরন্তু, সমস্ত গাছগুলি বেড়া, চেকপয়েন্ট এবং অন্যান্য ব্যবস্থার সাহায্যে সুরক্ষিত থাকবে।

পারমাণবিক চুল্লি পারমাণবিক ফিশন নামে একটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কাজ করে। জ্বালানীকে চুল্লিতে লোড করার পর ফিশন প্রক্রিয়া শুরু হয়,যার মাধ্যমে নিউট্রন উৎপন্ন হয়। মুক্ত নিউট্রন ইউরেনিয়ামের অন্যান্য অণুকে আঘাত করে যার ফলে নিউট্রন সংখ্যা বাড়তে থাকে। এই প্রক্রিয়াকে “চেইন বিক্রিয়া” বলে।

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলিতে, যা বর্তমানে রাশিয়ার মাধ্যমে দেশ এবং বিদেশ উভয় ক্ষেত্রেই নির্মিত হয়েছে এবং হচ্ছে, ফুকুশিমাতে ঘটে যাওয়া দুর্ঘটনার পুনরাবৃত্তি হওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। রাশিয়ান বিশেষজ্ঞদের দ্বারা ডিজাইন করা এনপিপিগুলির একটি মাল্টিলেয়ার সিকিউরিটি সিস্টেম রয়েছে। এই মাল্টিলেয়ার সিকিউরিটি সিস্টেমগুলোর মধ্যে অন্যতম – মল্টেন (গলিত) কোর ক্যাচার এবং প্যাসিভ হিট রিমুভিং সিস্টেম। এটি রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র সহ রাশিয়ার ডিজাইন করা সমস্ত বিদ্যুৎকেন্দ্রে উপস্থিত রয়েছে।

একটি পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র সমস্ত দৃষ্টিকোণ থেকে নিরাপদ। এটি শস্য এবং জলজ পরিবেশের কোন প্রকার ক্ষতি করবে না। পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলি থেকে কোনো প্রকার  রাসায়নিক নির্গমন হয় না। উদাহরণস্বরূপ, রাশিয়াতে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের পাশেই মাছ ধরার প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয় এবং মাছগুলো ধরার পর ডজিমিটারের সাহায্যে মাছের তেজস্ক্রিয়তা পরীক্ষা করা যায় যা সাধারণ মাছ আর পানির মতই সম্পূর্ণ স্বাভাবিক থাকে।

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে ব্যবহৃত এক কেজি পারমাণবিক জ্বালানী, দুটি রেল গাড়ির সমান কয়লা (১০০,০০০ কেজি) বা দুটি রেলওয়ে ট্যাংকের সমান তেলের  (৬০০,০০০ কেজি) শক্তির সমান হয়। সুতরাং, পারমাণবিক শক্তি সুলভ এবং আরও কার্যকর।

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিবেশ দূষিত করে না। পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের ক্ষতিকর প্রভাব অন্যান্য তাপ বা কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে অনেক কম, যেখানে তাপ বা কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র নানান ক্ষতিকর পদার্থ পরিবেশে ছড়ায় এবং পরিবেশ দূষিত করে। পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র অনেক উন্নত প্রযুক্তির। সমস্ত ব্যবহৃত জ্বালানী পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের অভ্যন্তরেই থাকে, যা পরে শক্তিশালী কন্টেইনারের মাধ্যমে সরিয়ে নেয়া হয় যেন তা না ছড়ায়।

দুর্দান্ত শক্তি ধারণক্ষমতা
সম্পূর্ণভাবে জ্বলতে গেলে, ৪% পর্যন্ত সমৃদ্ধ হওয়া ১ কেজি ইউরেনিয়াম (যা পারমাণবিক জ্বালানিতে ব্যবহৃত হয়) প্রায় ১০০ টন উচ্চ মানের বিটুমিনাস কয়লা বা ৬০ টন তেল পোড়ানোর ফলে প্রাপ্ত শক্তির সমান শক্তি তৈরি করে।

পুনরায় ব্যবহারযোগ্যতা
ফিসাইল উপাদান (ইউরেনিয়াম -২৩৫) পুরোপুরি পারমাণবিক জ্বালানীতে পুড়ে যায় না এবং পরে পুনরায় ব্যবহার করা যেতে পারে । ভবিষ্যতে, বদ্ধ জ্বালানী চক্রে (Closed Fuel Cycle) সম্পূর্ণ রূপান্তর সম্ভব (যার অর্থ কোনও বর্জ্য উৎপন্ন হবে না)।

গ্রিনহাউস গ্যাস হ্রাস
পারমাণবিক শক্তির নিবিড় বিকাশকে বৈশ্বিক উষ্ণায়নের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের একটি উপায় হিসাবে বিবেচনা করা যেতে পারে। প্রতি বছর ইউরোপের পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলি ৭০০ মিলিয়ন টন কার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গমন এড়াতে সহায়তা করে এবং জাপানে তা ২০০ মিলিয়ন টন। সক্রিয় রাশিয়ান পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলি প্রতিবছর বায়ুমণ্ডলে ২১০ মিলিয়ন টন কার্বন ডাই অক্সাইডের নির্গমনকে বাধা দেয়। এই ক্ষেত্রে রাশিয়া বিশ্বে চতুর্থ স্থানে রয়েছে।

অর্থনৈতিক উন্নয়ন
পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে সহায়তা করে এবং নতুন কর্মসংস্থানের সৃষ্টি করে: পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণে ১ টি সংশ্লিষ্ট খাতে ১০-১৫ টির কাজ তৈরি করে। পারমাণবিক শক্তির বিকাশ গবেষণা এবং জাতীয় বৌদ্ধিক সম্ভাবনার বিকাশে অবদান রাখে।

বৈদ্যুতিক শক্তি বহুল পরিচিত শক্তি। সবারই বিদ্যুৎ দরকার। আধুনিক কোনকিছুই বিদ্যুৎ ছাড়া কাজ করে না। পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র হতে উৎপন্ন শক্তি আমাদের বাড়িকে আলোকিত করে এবং আমাদের টেলিভিশন, কম্পিউটার, এয়ার কন্ডিশনার এবং অন্যান্য সরঞ্জামকে চালানোর শক্তি দেয়।

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র আমাদের দেশের সাধারণ তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের মতোই কাজ করে, পরিবর্তন শুধুমাত্র জ্বালানীতে এবং পানির বাষ্পীকরন প্রক্রিয়ায়। পানির প্রথম সার্কিট যায় চুল্লীতে এবং দ্বিতীয় সার্কিট যায় স্টিম জেনারেটরে।  প্রথম সার্কিট থেকে আসা  পানিকে চুল্লীতে তাপ দেয়া হয় ফিশন বিক্রিয়ার মাধ্যমে কিন্তু উচ্চচাপ থাকার কারণে বাষ্পে পরিণত হয় না। সেই গরম পানি যায় স্টিম জেনারেটরে। স্টিম জেনারেটরে দ্বিতীয় সার্কিট থেকে পানি আসে এবং তা প্রথম সার্কিটের উত্তপ্ত হওয়া পানি থেকে তাপ নিয়ে বাষ্প হয়ে টারবাইনে গিয়ে টারবাইনকে ঘুরায়। তারপর জেনারেটর বিদ্যুৎ উৎপাদন করে, যা গ্রাহকদের জন্য বিদ্যুতের লাইনে বিদ্যুৎ সরবরাহ করে।

পারমাণবিক শক্তি সফলভাবে মহাকাশযান সরঞ্জাম, বিমান, গভীর সমুদ্রের মেশিন এবং আইস ব্রেকারগুলিতে ব্যবহার করা হয়েছে। পৃথিবীতে প্রায় ১৬০ টি বিভিন্ন আইসোটোপ ব্যবহার করা হয়। যে রাসায়নিক উপাদানগুলির প্রোটন সংখ্যা এক কিন্তু নিউট্রন সংখ্যা ভিন্ন তারা পরস্পরের আইসোটোপ। আইসোটোপের সাহায্যে জীববিজ্ঞান এবং জৈব রসায়নের বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রচুর পরিমাণে গবেষণা পরিচালিত হয়েছে। তেজস্ক্রিয় আইসোটোপগুলি ব্যাপকভাবে ব্যবহার হচ্ছে :  পেট্রোলিয়াম বহনকারী পাইপলাইনের ছিদ্র পর্যবেক্ষণ, স্বয়ংক্রিয় উৎপাদন, ফলিত রসায়ন, রোগ নির্ণয়ের জন্য বিভিন্ন চিকিৎসা, শিল্প এবং আরো অনেক কিছুতে।

আইসোটোপ রসায়নে রাসায়নিক বিক্রিয়া, দহন প্রক্রিয়া, অনুঘটক, রাসায়নিক যৌগগুলির সংশ্লেষণ এবং স্পেকট্রোম্যাট্রির প্রক্রিয়া অধ্যয়ন করার জন্য সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়। চিকিৎসাক্ষেত্রে যেমনঃ এক্স-রে মেশিন, গামা রেডিওগ্রাফীতেও আইসোটোপের ব্যবহার রয়েছে।

কৃষিতেও মাটির ভৌত বৈশিষ্ট্য এবং খাদ্য উদ্ভিদের উপাদানগুলির মজুদের কাজে, গাছপালা দ্বারা খনিজ সার থেকে পুষ্টির একীকরণ প্রক্রিয়ায়, মাটি এবং সারের পারস্পরিক ক্রিয়া অধ্যয়ন করতে আইসোটোপ ব্যবহৃত হয়।

* যে জ্বালানী ব্যবহার করা হয় সেটি প্রচুর শক্তি সম্পন্ন।

* জ্বালানী পুনরায় ব্যবহারের ক্ষমতা (পুনরায় উৎপাদনের পর)।

* পারমাণবিক শক্তি “গ্রিনহাউস প্রভাব” তৈরিতে অবদান রাখে না। প্রতি বছর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলি ২ বিলিয়ন টন কার্বন ডাই- অক্সাইড নির্গমন এড়ায়।

* সাধারণত পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলিতে উৎপাদিত বিদ্যুতের ব্যয় অন্যান্য ধরণের বিদ্যুৎ কেন্দ্রের তুলনায় কম।

কণা বা তরঙ্গের মাধ্যমে শক্তি নির্গমনের প্রক্রিয়াকে রেডিয়েশন বলে। এটি একটি প্রাকৃতিক ঘটনা যা কোটি কোটি বছর আগে থেকেই ছিলো। সকল প্রাণীই এই বিকিরণের প্রভাব অনুভব করে। বিভিন্ন ধরণের বিকিরণ মহাশূণ্য এবং পৃথিবীর ভূত্বকে অবস্থিত তেজস্ক্রিয় পদার্থ থেকে পৃথিবীর পৃষ্ঠে পৌঁছে যায়। পৃথিবীর ভূত্বকে অবস্থিত পটাসিয়ামেরও তেজস্ক্রিয় আইসোটোপ রয়েছে। তেজস্ক্রিয় উপাদানগুলি মানবদেহের টিস্যুতে সর্বদা উপস্থিত থাকে এবং এগুলো থেকে মুক্তি পাওয়া অসম্ভব।

পারমাণবিক শক্তি পাওয়ার প্রথম পদক্ষেপ হল ইউরেনিয়াম আকরিক খনন করা। আকরিকে ১% এরও কম খাঁটি ইউরেনিয়াম রয়েছে। তারপর আকরিকটি প্রক্রিয়াজাত করা হয় এবং পরবর্তী ধাপে পাঠানো হয় যা হলো ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধিকরণ। এই ধাপে ইউরেনিয়ামের ঘনত্ব ১%-৪% বাড়ানো হয়। ইউরেনিয়াম পেলেটগুলি এনরিচড ইউরেনিয়াম থেকে তৈরি করা হয়। পরবর্তীতে পেলেটগুলো একটি ফুয়েল রড নামক ধাতব টিউবের ভেতরে লোড করা হয়। যখন সকল ফুয়েল রড ফুয়েল এসেম্বলিতে সংযুক্ত করা হয়, তখন ফুয়েলকে চুল্লীর ভেতর প্রবেশ করানো হয়।